Half-Girlfriend - Chetan Bhagat | হাফ গার্লফ্রেন্ড চেতন ভগত pdf
Skip to content
Shahriar Alam Rakib Blogs Feature Image
Home » Half-Girlfriend – Chetan Bhagat | হাফ গার্লফ্রেন্ড চেতন ভগত pdf

Half-Girlfriend – Chetan Bhagat | হাফ গার্লফ্রেন্ড চেতন ভগত pdf

রিভিউ
Half-Girlfriend – Chetan Bhagat

সামারিঃ মফস্বল থেকে আগত মাধব ঝা দিল্লির বিখ্যাত ইংরেজি মাধ্যমিক স্টিফেন্স কলেজে চান্স পেয়ে ভর্তি হয়। আধুনিক সংস্কৃতি থেকে অজ্ঞ মাধব সেখানে খাপ খাওয়াতে একটু হিমশিম খায়। সেখানেই তার দেখা হয় আত্মবিশ্বাসী ও প্রাণোজ্জীবিত রিয়া সোমানির সাথে। বাস আর কি, এক্কেবারে বলিউডি কায়দায় প্রথম দেখা ধপাস করে তার প্রেমে পড়ে যায় মাধব।
তাদের বন্ধুত্ব বাড়তে থাকে। চাপা সভাবের রিয়া ধীরে ধীরে তার মনের কথাগুলো মাধবকে বলতে থাকে। মাধবও ভাবতে থাকে এই কথাগুলো রিয়া কাউকে বলেনি, শুধু মাত্র তাকেই বলছে। তার মানে রিয়ার জীবনে নিশ্চই মাধব অন্যদের তুলনায় অধিক গুরুত্ব রাখে। আর এই ভ্রান্ত ভাবনাই তাকে উদ্বুদ্ধ করে এমন কিছু কর্মকান্ড করতে যাতে রিয়া প্রচণ্ড কষ্ট পায় এবং তাদের বন্ধুত্ব ভেঙ্গে যায়। রিয়া তাকে ছেড়ে চলে যায় অনেক অনেক দূরে। মাধব কি ফিরে পাবে রিয়াকে? রিয়া কি কখনও মাধবের ভালোবাসা বুঝবে?
.
এই হল বইটির মূল গল্প। এর সাথে প্রাসঙ্গিক-আনুষাঙ্গিক অনেক প্যাচ আছে। সেগুলো আপনারা বইটি পড়েই জানতে পারবেন।
.
রিভিউটি লিখার আগে একটু ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি, যারা বইটি পড়েছেন এবং খুবই পছন্দ করেছেন। কারণ বইটা আমার কাছে একদমই ভালো লাগেনি, বস্তুত পক্ষে বইটা পড়ে এক পর্যায়ে আমার প্রচণ্ড বিরক্ত লেগেছে।
.
প্রথমেই বইটির নামকরণ নিয়ে একটু বলতে চাই। মিঃ চেতন ভগত, খুব ভালো একটা ট্রিক ব্যবহার করে নামটি রেখেছেন। হাফ-গার্লফ্রেন্ড অর্থাত্‍ অর্ধ-প্রেমিকা – এই নামটি পড়ে তরুণসমাজ টাশকি খেয়ে যাবে। ভাববে হায় হায় কি আকর্ষণীয় একটা নাম! অর্ধ-প্রেমিকা? কি আছে এই অর্ধ-প্রেমিকার মধ্যে? এর মানেটা কি? এই মানেটা খুজতেই অনেকে বইটি পড়তে আগ্রহী হবেন, ঠিক যেমনটা আমি আগ্রহী হয়েছিলাম।
কিন্তু ভাইজান, আপনি যদি আমার মত মানসিকতার হয়ে থাকেন, তাহলে বইতে হাফ-গার্লফ্রেন্ডের যে ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে তাতে ভ্রু অবশ্যই কুচকোবেন। মিঃ চেতন ভগতের মতে, গার্লফ্রেন্ড তাকেই বলে যার সাথে আপনি অবাধ মেলামেশা করতে পারবেন, সেটা বৈধ হোক অথবা অবৈধ। এক কথায় পাশ্চাত্য মতাদর্শের পূর্ণ প্রায়োগিকতাই গার্লফ্রেন্ডকে আখ্যা দেয়। আর হাফ-গার্লফ্রেন্ড তথা অর্ধ-প্রেমিকা কি? Well, এমন একজন, যার সাথে আপনি প্রেম-ভালোবাসার স্বপ্ন দেখতে পারবেন, যাকে নিয়ে আপনি ভবিষ্যতের কথা ভাবতে পারবেন কিন্তু, অবৈধ (বা লেখকের মতে বৈধও হতে পারে) ভাবে তার সাথে মেলামেশা করতে পারবেন না।
অর্থাত্‍ লেখক এটাই বলতে চাইছেন যে আমাদের উপমহাদেশীয় সংস্কৃতি অনুযায়ী যারা প্রেম-ভালোবাসায় জড়িত, আমরা সবাই আসলে অর্ধ-প্রেমিক এবং অর্ধ-প্রেমিকা। ওয়ে হোয়ে! হাত তালি!!!
.
এইতো গেল অর্ধা-অর্ধির লড়াই। এখন আসি একটু মুল বইয়ে। এই বইয়ের গল্পে নতুনত্ব তো না-ই, এমনকি নতুনত্বের ছোয়াও পাবেন না। আপনি যদি ইদানিং কালের কিছু তারুণ্যনির্ভর প্রেমের ছবি (অবশ্যই বলিউড) দেখে থাকেন তাহলে বলব এই বইটা আপনার না পড়লেও চলবে। সাধারন কাহিনী, প্রথম দেখাতেই নায়ক নায়িকার প্রেমে পড়ে যায়, নায়ক-নায়িকার মধ্যে একজন থাকে বিশাল বড়লোক আরেকজন খ্যাত, যে থাকে বড়লোক তার আবার টাকা-পয়সার প্রতি কোনোই আগ্রহ থাকে না বরং নিজের শান্তির খোজে প্রতিনিয়ত নিজেকে খুজে বেড়ায়, নায়ক-নায়িকার মধ্যে হঠাত্‍ একটা ঝগড়া লাগে নায়িকা যায় হারিয়ে এরপর একদম সাধারনভাবে নায়িকার খোজে নায়ক ছুটে বেড়ায় এদিক-সেদিক। এক্কেবারে শোনা গল্প জানা গল্প।
.
আচ্ছা যাক, গল্প নাহয় মেনেই নিলাম খুব সুন্দর, কিন্তু মূল নায়ক-নায়িকার চরিত্রটাই যদি আপনি ঠিকভাবে প্রতিষ্ঠিত না করতে পারেন, তাহলে এত তথাকথিত রোমান্টিক গল্পে পাঠকের মন আদৌ গলবে কিনা সন্দেহ। আপনি একটা বাড়ি বানাবেন, সেটর ফাউন্ডেশনই যদি আপনি ঠিক মত না দেন তাহলে বাড়িটা কিভাবে দাড়াবে?
গল্পের নায়ক মাধব ঝা, এর সাথে যে এত অবিচার হয় অথচ আমার কোনো দিক দিয়েই ওর প্রতি সহানুভুতি হয়নি। তুই ব্যাটা প্রেমের মানে বুঝোসটা কি? একটা মেয়েকে অবাধে চুমু খাওয়া, তাকে নিয়ে রুম ডেট করা এটাকে প্রেম বলে নাকি এটাকে বলে লাফাঙ্গাপণা? এইযে এই ছেলেটার প্রতি পাঠকদের একটা বিরূপ ধারণা জন্মাবে এটাই পুরো গল্পটাকে ফ্লপ করার জন্য যথেষ্ঠ। আর যাইহোক, এর মত ফাতরা পোলাপানদের তথাকথিত প্রেমের গল্পে আমাদের মত উপমহাদেশীয় পাঠকদের মন গলাতে পারে না।
ওদিকে কিছু সংখ্যক পাঠক আবার রিয়া সোমানির উপর বিরক্ত হতে পারেন যে মেয়েটা মাধবকে এত কষ্ট কেন দিচ্ছে? আমি বলব রিয়া যা করেছে এক্কেবারে সঠিক। এসব ছেলেদের জুতা দিয়া পিটানো উচিত। অন্তত রিয়া সেটা করেনি।
.
গল্পটা তিনটা ভাগে বিবৃত হয়েছে যার প্রথম ভাগটা ছিল, যেটা বললাম পড়ে আপনার প্রচণ্ড রাগ উঠবে মাধব ঝায়ের উপর। দ্বিতীয় ভাগটি আমার মতে গল্পের সেরা (বাকি দুটো ভাগের তুলনায়) ভাগ। এখানে মা-ছেলের কিছু খুনসুটি হয়ত আপনাকে একটু হলেও স্বস্তি দিবে। এখানে রিয়া-মাধবের প্যারাগুলো আগের অংশের তুলনায় ঠিকঠাক আছে। আর একেবারে শেষ অংশে এসে আপনি একটু হলেও হাফিয়ে উঠবেন। আসলে শেষ অংশে মুল কথা খুব বেশি কিছু নাই। শুধু শুধু বইটাকে লম্বা করা হয়েছে। প্রথমত, রিয়া কিভাবে মাধবের জীবন থেকে চলে গেল, কি হল, না হল এসব কিছু আপনি বিগত প্রায় ২০০ পৃষ্ঠায় পড়ে এসেছেন। এই ৩য় অংশে এসে সেই একই কাহিনী সংলাপ আকারে আবার পূণরায় উথাপিত হয়। অর্থাত্‍ নিউইয়র্কে মাধবের বন্ধু শৈলেস রিয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে মাধব পুরান গল্প আবার রিপিট করে। এখন কথা হল, আমরা তো পাঠক। আমরা ২০০ পৃষ্ঠা পার করে সেই সব কিছু জেনে আসছি। এখন বইয়ের একটা চরিত্র শৈলেসের জন্য কি আমাদের একই গল্প আবার জানতে হবে?
দ্বিতীয়ত, নিউইয়র্কে প্রিয়া নামক একটি চরিত্রকে এক্কেবারে অযথাই ঢুকানো হয়েছে, মূল গল্পের সাথে যার দূর সম্পর্কেরও কোনো সম্পর্ক নেই। অর্থাত্‍ ৩য় অংশকে হুদাই টেনে হিচড়ে লম্বা করার জন্য এই দুটো জিনিসকে ঢুকানো হয়েছে।
আপনারা ভাবতে পারেন আমি হয়ত অস্থির পাঠক। শেষ উপসংহারে আসতে আমার আর তর সয়নি। অপেক্ষা করতে পারতাম। কিন্তু আগেই আমি বলেছি গল্পে কোনোই নতুনত্ব নেই। অর্থাত্‍ গল্পটা আমি পুরোপুরি প্রিডিক্ট করতে পারছিলাম যে শেষ পর্যন্ত কি হবে এবং আমার প্রিডিকশন পুরাই মিলে গেছে। যদি এমন হত গল্পটা কোনোভাবেই ধারনা করা যায় না এরপরে কি হবে তাহলে আমি অপেক্ষা করে ধীরে ধীরে ৩য় অংশটা পড়তাম। কিন্তু আপনি জানেন যে শেষে কি হবে তাহলে আপনি কেন এতগুলো অযথা পৃষ্ঠা পড়ে সময় নষ্ট করবেন?

২০০-২৫০ এমনকি তারও বেশি পৃষ্ঠার দীর্ঘ উপন্যাস পড়েও হয়ত আপনি হয়রান হবেন না, যদি তাতে পাঠকের আগ্রহ ধরে রাখার মত ক্ষমতা থাকে। অথচ হাফ-গার্লফ্রেন্ডের মত এত প্রিডিক্টেবল বই এত সময় নিয়ে পড়ার প্রশ্নই উঠে না। সুতরাং শিরোনাম দেখে যারা বইটা পড়ার আগ্রহবোধ করছেন, তাদের বলছি ভাই/বোন, যদি আপনি নিজের সময় ও মেজাজ খারাপ করতে না চান তাহলে এই বইয়ের ধারের কাছেও যাবেন না। আর তাও যদি পড়তে চান তবে সেটা নিজ ইচ্ছায় পড়বেন। তবে আমি বলব ঐ সময়টায় আপনি আরও দুটো উন্নতমানের বই পড়ে ফেলতে পারবেন।
.
যারা বইটা পড়েছেন তাদের কেমন লাগল জানাবেন।
.
আকিব খান অভীর

Read More: Top 5 Freelancing Skills to Learn for Beginners

For Bengali Book Review Please Visit: Boier Feriwala

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x