সপ্তশ - সালেহ তিয়াস | রিভিউ
Skip to content
Shahriar Alam Rakib Blogs Feature Image
Home » সপ্তশ – সালেহ তিয়াস | রিভিউ

সপ্তশ – সালেহ তিয়াস | রিভিউ

বুক রিভিউ
বইঃ সপ্তশ
লেখকঃ সালেহ তিয়াস
প্রকাশণীঃ বাতিঘর প্রকাশনী
গায়ের দামঃ ১৩০ টাকা

আরিফ
একজন সফল প্রাইভেট ইনভেস্টিগেটর। বন্ধুর অনুরোধে ছোট্ট একটা রহস্য সমাধান করতে গিয়ে খোজ পেয়ে যায় অন্যকিছুর। অনেক বড় একটা ঘটনা ঘটে চলেছে শহর জুড়ে। রহস্যের সমাধান করতে না পারলে খুন হয়ে যাবে কেউ। মরিয়া হয়ে শেষ চাল চাললো আরিফ। কিন্তু তাতে লাভ হলোনা, সর্বনাশ যা হবার হয়েই গেলো শেষ পর্যন্ত।

সাদিয়া
অসুস্থ সন্তানকে আঁকড়ে ধরে জীবন যুদ্ধে অবতীর্ণ হওয়া এক নারী। সন্তানের সুখের জন্য হাসিমুখে সব করতে রাজি সে। একসময় খানিকটা অপ্রত্যাশিত ভাবেই তার জীবনে এলো প্রেম। কিন্তু সে প্রেমে সাড়া দিতে গিয়েও ছাড়তে পারলোনা পিছুটান। বৃত্তে বন্দী জীবনে সাহসী কিছু হয়তো আসলেই করা সম্ভব নয়।

মোতালেব সাহেব
সামান্য ছাপোষা কেরানী মাত্র। অফিসের সবার তুচ্ছ তাচ্ছিল্যের শিকার। কিন্তু এই নিপাট ভালো মানুষের চেহারার আড়ালে লুকিয়ে আছে অন্য এক রুপ। মানুষকে নিয়ে সাইকোলজিক্যাল পরীক্ষা চালাতে বড় ভালোবাসেন তিনি। আর পরীক্ষার অন্তিম ফলাফল জানতে যে কোনো কিছু করতে পারেন। যে কোনো কিছু।

এই তিনটি চরিত্রের পারিপার্শ্বিক সমান্তরাল ঘটনাবলিকে উপজীব্য করেই গড়ে উঠেছে পুরো উপন্যাস। একই সাথে চলেছে অতীত আর বর্তমানের গল্প। আবার একটা পর্যায়ে এসে দুটো সময় মিলেও গিয়েছে দারুণভাবে। একদম সাবলীল, ঝরঝরে ভাষায় লেখা। দারুন ফাস্ট পেস একটা গল্প। কোথাও কোনো বিরক্তি উতপাদনের সুযোগ না দিয়ে চুম্বকের মতো আকর্ষণ ধরে রেখে এগিয়ে গেছে তর তর করে। তবে এটাকে উপন্যাস না বলে এক ধরনের মাইন্ড গেম বলাটাই মনে হয় বেশী যুক্তিযুক্ত। আর এই গেমটা উপন্যাসের প্রথম পৃষ্ঠা থেকেই শুরু হয়ে যাবে পাঠক আর লেখকের মাঝে। একজন বুদ্ধিমান পাঠক মাত্রই এ ধরনের উপন্যাস আগে বাড়ার সাথে সাথে নিজেই রহস্য সমাধানের চেষ্টা করে যান, মনের ভিতর তৈরী করতে থাকেন একের পর এক হাইপো থিসিস।

সপ্তশ পড়তে গিয়েও এর ব্যতিক্রম হবেনা। পাঠক হয়তো রহস্যের একটা অংশ দুইয়ে দুইয়ে চার মেলানোর মতো করে মিলিয়েও ফেলতে পারবেন, কিন্তু শেষ পর্যন্ত যে টুইস্টের মুখোমুখি হতে হবে তার জন্য নিজেকে প্রস্তুত করতে পারবেন না কিছুতেই। লেখক আসলে উপন্যাসের শুরু থেকেই পাঠকের মনকে নিয়ন্ত্রণ করে যাবেন, পরিচালিত করতে বাধ্য করবেন বিভিন্ন পথে। কিন্তু তুরুপের তাস অনেক আগে থেকেই যে তার হাতে লুকোনো,সেটা বুঝতে দেবেন একেবারে শেষমূহুর্তে। আর তখন লেখকের ক্ষুরধার মস্তিষ্কের প্রশংসা করা ছাড়া পাঠকের করার কিছুই থাকবেনা। আর এখানেই সাইকোলজিক্যাল থ্রিলার হিসেবে সফল সপ্তশ, দারুণ ভাবেই সফল সালেহ তিয়াস।

দূর্দান্ত গতি, একের পর এক কোড ব্রেকিং আর ব্রেইনের নাট বল্টু খুলে হাতে ধরিয়ে দেয়া টুইস্টের এই ভিন্নমাত্রার উপন্যাসটার একমাত্র দূর্বল দিক, আমার কাছে যেটা মনে হয়েছে সেটা হলো সংক্ষিপ্ততা। ১৪১ পৃষ্ঠা এতো বিস্তৃত কাঠামোর উপন্যাসের জন্য অপ্রতুল মনে হয়েছে। একই কারণে চরিত্রগুলোর সাইকোলজিক্যাল ব্যাকগ্রাউন্ড সেভাবে প্রতিষ্ঠিত হবার সুযোগ পায়নি। এটুকু ছাড়া এ উপন্যাসে অভিযোগ করার মতো আর কিছু নেই। আমার মতে সবকিছু মিলিয়ে পুরাই অস্থির একটা বই। আমাদের দেশেও যে ফার্স্টক্লাস সাইকোলজিক্যাল থ্রিলার লেখা হতে পারে, তার চমতকার একটা উদাহরণ সপ্তশ। সালেহ তিয়াসের লেখার সাথে যাদের পরিচয় আছে তারা লেখকের যাদুকরী লেখার স্বাদ পাবেন আরেকবার। আর যারা এখনো পরিচিত নন তাদের তিয়াস ভাইয়ের লেখার অনুরাগী পাঠক বানিয়ে ফেলতে এই একটা উপন্যাসই যে যথেষ্ট, সেটা নিশ্চিন্তে বলতে পারি।
রেটিংঃ ৪.৫/৫

(সালেহ তিয়াস ভাইয়ের মতো করে বলতে গেলে বলতে হয়, পয়সা উসুল তো বটেই, তিন চার গুণ উসুল )

Read More: Top 5 Freelancing Skills to Learn for Beginners

For Bengali Book Review Please Visit: Boier Feriwala

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x