দা হান্ট ফর রেড অক্টোবর টম ক্ল্যান্সি | The Hunt for Red October Tom Clancy
Skip to content
Shahriar Alam Rakib Blogs Feature Image
Home » দা হান্ট ফর রেড অক্টোবর টম ক্ল্যান্সি | The Hunt for Red October Tom Clancy

দা হান্ট ফর রেড অক্টোবর টম ক্ল্যান্সি | The Hunt for Red October Tom Clancy

রিভিউ !!! রিভিউ !!!! রিভিউ !!!
দা হান্ট ফর রেড অক্টোবর
লেখক : টম ক্ল্যান্সি
জনরা : মিলিটারি টেকনো থ্রিলার


সাবমেরিন যুদ্ধ কেমন লাগে আপনাদের ? বিশেষ করে যদি পারমানবিক সাবমেরিন হয় ??
টেকনো থ্রিলারের জগতে টম ক্ল্যান্সির কথা কি আর বলবো ! যা বলবো তাই বাহুল্য হবে এ কথা বলাই বাহুল্য 😛
সোভিয়েত নেভির এক পারমানবিক টাইফুন ক্লাস মিসাইল সাবমেরিনের নাম হচ্ছে রেড অক্টোবর। এতে পরীক্ষামূলক ভাবে একটা ষ্টীলথ প্রপালশন সিস্টেম ইন্সটল করা হয়েছে যেটার সাহায্য সাবমেরিনকে শত্রুপক্ষের সোনারে ধরা পরার হাত থেকে রক্ষা করা যায়। এই সুযোগে নিরাপদে শত্রু জল সীমায় ঢুকে ইচ্ছামত মিসাইল ছুঁড়ে হারিয়ে আবার নিরাপদেই হারিয়ে যাওয়া যায় !
সাবমেরিনটি আমেরিকার দিকে যাচ্ছিল। উদ্দেশ্য নতুন ষ্টীলথ প্রপালশন সিস্টেমের ব্যাবহারিক প্রয়োগ
এর মধ্যে এর অধিনায়ক ক্যাপটেন রামিয়াস গোপন একটি প্ল্যান ফেঁদে বসেন। আমেরিকার জলসীমায় ঢুকে আক্রমন করার বদলে উল্টা তিনি সাবমেরিনটি নিয়ে আমেরিকানদের সাথে যোগ দেবার প্ল্যান করেন !!!!

কেন ?? রামিয়াসের উদ্দেশ্য কি ঐ ষ্টীলথ প্রপালশন সিস্টেম দেশের হাত থেকে শত্রুদের হাতে তুলে দেওয়া ? নাকি আরও ভয়াবহ কোন কারন আছে সাবমেরিনটা নিয়ে পালানোর ? কি কারনে এমন একটি প্ল্যান ফেঁদে বসছেন রামিয়াস সেটা জানতে হলে পড়তে হবে বইটা। স্পয়লার ইস্যুর জন্য সেদিকে আমি আর যাচ্ছি না।

রামিয়াসদের বিশ্বাসঘাতকতার খবর পাওয়া মাত্র সোভিয়েত নেভি আরেকটা ফ্লিট পাঠায় একে ধ্বংস করতে। যে কোন মূল্য ঠেকাতে হবে রামিয়াসকে নাহলে আমেরিকানদের হাতে চলে যাবে ঐ প্রটোটাইপ !
ইতিমধ্যে সিআইএ এজেন্ট জ্যাক রায়ানকে দেখা যায় এই রামিয়াসের সাথে যে কোন মূল্যে যোগাযোগের চেষ্টা চালিয়ে যেতে…
শেষ পর্যন্ত কি সফল হবে রামিয়াস ও তার দল ? সোভিয়েত থেকে রাতারাতি আমেরিকান হয়ে উঠতে পারবে তারা ? কেন তারা নিজের দেশের সাথে এরকম বিশ্বাসঘাতকতা করলো ?
জ্যাক রায়ান ও আমেরিকান নেভি কি পারবে সোভিয়েত ফ্লিটের হাত থেকে রেড অক্টোবরকে বাঁচিয়ে রাখতে ? জানতে হলে পড়তে হবে বইটা।

নেভাল ওয়ারফেয়ারের টান টান উত্তেজনা, প্রতি পাতায় পাতায় যেন থ্রিল মাখানো !!!! !
মিলিটারি টেকনো থ্রিলার যেমন হয় অর্থাৎ রাশি রাশি মিলিটারি টার্ম আছে বইটাতে। যারা এসব পড়তে সাচ্ছন্দবোধ করেন না বইটা তাদের জন্য নয়। তবে মিলিটারি টেকনো থ্রিলার পড়া যদি শুরু করতে চান তাহলে এই বইয়ে দিয়েই শুরু করতে পারেন। কিছুদুর পড়লেই বুঝবেন এত দিন কি মিস করেছেন ! সুতরাং এসব টেকনিক্যাল টার্ম ভালো লাগে না হাবিজাবি বলা বাদ দিয়ে বসে পড়ুন বইটা নিয়ে।

এই বইটি ছিল এই বিশ্ব নন্দিত লেখকের প্রথম এই জনরা নিয়ে লেখা বই। এবং ১ম বইয়েই বাজিমাত। পরবর্তীতে অন্যান্য অনেক মিলিটারি থ্রিলার লেখকই এই বইয়ের থেকে ইনফ্লুয়েন্সড হয়ে লেখালিখি করেছেন। বিশেষ করে কয়েকটা জিনিসতো আমি বেশ কয়েকটা থ্রিলার বইতে পেয়েছি। ঐ ক্লিশেগুলার (cliche) উৎস খুঁজতে গিয়েই আমি এই বইটার সন্ধান পাই। অথচ পরম সত্য হল এটাই আগে পড়া উচিৎ ছিল। কিন্তু আগে হাতে পড়ে নাই কি আর করা ! যাই হোক স্পয়েলার ইস্যুর জন্য ওসব ক্লিশে আর আলোচনা করছি না।
সে যাই হোক পড়া শুরু করে দিন ! হারিয়ে যান নেভাল ওয়ারফেয়ারের উত্তেজনার জগতে !

রিভিউ লিখেছেনঃ Hasan Humayun Chowdhury

Read More: Top 5 Freelancing Skills to Learn for Beginners

For Bengali Book Review Please Visit: Boier Feriwala

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x